জিয়াউর রহমান একটা অমানুষ জন্ম দিয়ে গেছে: মান্নান ভূঁইয়া

জিয়াউর রহমান একটা অমানুষ জন্ম দিয়ে গেছে: মান্নান ভূঁইয়া

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট সন্ধ্যা বেলা। আওয়ামীলীগের সমাবেশে ন্যাক্কারজনক হামলার পর পর। মিন্টু রোডের বাসার দোতলায় বসে সারাদেশের খোঁজ খবর নিচ্ছিলেন তৎকালীন বিএনপির মহাসচিব আব্দুল মান্নান ভূঁইয়া। সাথে বসা ছিলেন বিএনপির তৎকালীন দপ্তর সম্পাদক সাংবাদিক আহমেদ মুসা। তিনি এখন নিউইয়র্ক প্রবাসী। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে মান্নান ভূঁইয়ার বাসায় হন্তদন্ত হয়ে ঢুকলেন তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর। তিনি ঢুকেই বললেন, বিএনপির রাজনীতি আর করা যাবেনা মান্নান ভাই। আমি রাজনীতি ছেড়ে দিবো এবং পদত্যাগ করবো। তখন মান্নান ভূঁইয়া কিছুক্ষণ চুপ করে ছিলেন, পরে বললেন  “ জিয়াউর রহমান একটা অমানুষ জন্ম দিয়ে গেছে। আমাদেরও বাঁচতে দিবে না দেশ ও বাঁচবে না। তারেকের বুঝা উচিত ছিল শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর মেয়ে। একটা বৃহৎ দলের সভানেত্রী সাবেক প্রধানমন্ত্রী। এই রকম অর্বাচীনের মতো কাজ কিভাবে করতে গেলো।”

তখন লুৎফুজ্জামান বাবর জানালেন, শেখ হাসিনা মারা যায়নি। ঘটনার জন্য বাবর তার তৎকালীন সচিব ওমর ফারুককেও দায়ী করলেন।

বাবর আরো জানান, তারেক রহমানের এই প্ল্যান বাস্তবায়নের প্রধান হোতা হারিস চোধুরী, আব্দুস সালাম পিন্টু ওমর ফারুক এবং সরকারের তৎকালীন গোয়েন্দা সংস্থার কিছু উর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

এই তথ্যগুলো এক আড্ডায় দিয়েছিলেন বিএনপির দপ্তর সম্পাদক আহমেদ মুসা।

তাকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল তাহলে লুত্ফুজ্জামানের বাবরের ভূমিকা কি ছিল ? তিনি বললেন , মান্নান ভূঁইয়ার কাছ থেকে বের হয়ে গিয়েই ২১শে আগস্টের মূল ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করা , জর্জ মিয়া নাটক সৃষ্টি করা , আসামিদের পাকিস্তানে যাবার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়া। আর সব কিছুই বাবর করেছিলেন তারেক রহমানের নির্দেশে।

Comments