দেশে করোনার টিকা উৎপাদনের ব্যবস্থা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

দেশে করোনার টিকা উৎপাদনের ব্যবস্থা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

বুধবার (২ জুন) জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য মনিরা সুলতানের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী একথা জানান।
করোনা মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের অংশ হিসেবে বিদেশ থেকে সংগ্রহের পাশপাশি দেশেও টিকা উৎপাদনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা বলেন, “সরকার করোনা মহামারি মোকাবিলায় পর্যাপ্ত পরিমাণে টিকা সংগ্রহের জন্য নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। তারই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন দেশ ও টিকা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ চলমান রয়েছে। এছাড়া ভ্যাকসিন সংগ্রহের পাশাপাশি দেশে টিকা উৎপাদনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে প্রযুক্তি হস্তান্তরের বিষয়ে বিভিন্ন দেশ ও উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচনা অব্যাহত আছে”।

তিনি জানান, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোভাক্স ফ্যাসিলিটি থেকে ২০ শতাংশ জনগোষ্ঠীর জন্য টিকা সংগ্রহের কাজ চলছে। ইতিমধ্যে জরুরি ভিত্তিতে ২০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহের জন্য কোভাক্স ফ্যাসিলিটিকে চিঠি লেখা হয়েছে। সরকার রাশিয়া থেকে টিকা আমদানির জন্যও ইতিমধ্যে আনুষঙ্গিক কার্যক্রম গ্রহণ করেছে।

প্রধানমন্ত্রী সংসদকে আরও জানান, চীনের সিনেফার্ম থেকে টিকা কেনার বিষয়টি মন্ত্রিসভা অনুমোদন করেছে। আগামী জুন, জুলাই ও আগস্ট প্রতিমাসে ৫০ লাখ করে টিকা চীন থেকে পাওয়া যাবে। চীন থেকে ৫ লাখ ডোজ টিকা উপহার হিসাবে পাওয়া গেছে।

সরকার প্রধান বলেন, “ভারত থেকে টিকা সংগ্রহের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। ভারতে করোনা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি ঘটায় এপ্রিল মাসে (২০২১) সে দেশের সরকার টিকা রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। ফলে বাংলাদেশ বিকল্প উৎস হিসেবে চীন ও রাশিয়া থেকে টিকা সংগ্রহের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে”।

গত ১৮ মে ২০২১ পর্যন্ত দেশের চল্লিশোর্ধ্ব ও সম্মুখ সারির বিভিন্ন জনগোষ্ঠীকে ৯৬ লাখ ৪১ হাজার ৩১২ ডোজ টিকা প্রদান করা হয়েছে বলেও সংসদকে জানান প্রধানমন্ত্রী।

Comments