সরকারের কাছে খালেদা জিয়ার বিদেশে যাবার তদবির করছে জিয়া পরিবার!

সরকারের কাছে খালেদা জিয়ার বিদেশে যাবার তদবির করছে জিয়া পরিবার!

খালেদার জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো বা স্থায়ীভাবে সাজা মওকুফ, চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে পাঠানো, সর্বোপরি তার স্বাভাবিক জীবন নিশ্চিতের ব্যাপারে সরকারের সঙ্গে সমঝোতা বা দেনদরবার— কোনো কিছুই বিএনপি করছে না। এ ব্যাপারে সরকারের সঙ্গে সবধরনের যোগাযোগ, তদবির, দেনদরবার, সমঝোতা, আলাপ-আলোচনা খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে করা হচ্ছে।

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে আলাপ করে এসব তথ্য জানা গেছে। তারা বলছেন, খালেদা জিয়ার বিষয়টি তার পরিবারই দেখছে। তাছাড়া সরকারও চায় না খালেদা জিয়ার ব্যাপারে বিএনপির সঙ্গে বসতে। বরং পরিবারের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া খালেদা জিয়ার বিষয়টি পরিবারের সঙ্গেই ফয়সালা করতে চায় সরকার। সম্প্রতি বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও বলেন, ‘দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিষয়টি তার পরিবারই দেখছে।’

নিজ বাসায় থেকে চিকিৎসা গ্রহণ এবং বিদেশে না যাওয়ার শর্ত পুরোপুরি মেনেই ‘সাময়িক মুক্তির’ সময় পার করছেন বেগম খালেদা জিয়া। আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর তার সাময়িক মুক্তির মেয়াদ শেষ হবে। অর্থাৎ আগামী দুই মাস পর সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর ভাগ্য পুনঃনির্ধারণ হবে। তিনি বাসায় থাকবেন, না কারাগারে থাকবেন, নাকি উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যাবেন— সেটি চূড়ান্ত করতে হবে এই সময়ের মধ্যেই।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, খালেদা জিয়ার ভাগ্য নির্ধারণের বিষয়টি নিয়ে দলীয় ফোরামে আনুষ্ঠানিক কোনো আলোচনা নেই। দলীয় নেতারা বলছেন, আর আলোচনা করে কোনো লাভও নেই। কারণ, টানা সাড়ে ২৫ মাস কারাভোগের সময় বিএনপির পক্ষ থেকে বিরামহীন আইনি লড়াই, রাজপথে ‘শান্তিপূর্ণ’ কর্মসূচি, আন্তর্জাতিক পরিসরে খালেদার মুক্তির বিষয়টি তুলে ধরা, কূটনীতিকদের মাধ্যমে সরকারকে বোঝানোর চেষ্টা, দলকে সংগঠিত করে রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করা, সর্বোপরি বিভিন্নভাবে সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা— কোনো কিছুতেই কাজ হয়নি।

Comments